প্রবাস জীবন আলো আধাঁরীর বিষন্ন ছায়া

নতুন বছরের পথে পাড়ি জমানোর নিত্য নিয়মেই প্রবহমান সময়ের স্রোতে একেকটি নতুন বছর আসবে, থাকবে আর চলে যাবে পুরনো হয়ে। নতুন-পুরনোর মধ্যপথে দাঁড়িয়ে প্রবাসে বাস করেও নতুন স্বপ্ন, নতুন সুখ, নতুন কিছুর প্রাপ্তির প্রত্যাশায় চোখে স্বপ্ন, মনে আশা পুরাতন জরাজীর্ণ বদলে নতুন কিছু পাওয়ার দুর্নিবার আকাঙ্ক্ষা মনের কোনে দোলা দেয়। যেন কুয়াশাভরা তিমির শেষে নতুন সূর্যোদয় বদলে দেবে অনেক কিছু…।  দুঃখ-ক্লেশ, অপ্রাপ্তি-অপূর্ণতা, সব স্বপ্ন সত্যি হয়ে ধরা দেবে। নতুনের আগমন জীবনকে আরও বেশি গতিময়-ছন্দময় করে তুলবে, করবে আরও বেগবান, বর্ণিল। আগামীর নতুন সূর্য বদলে দেবে জীবনের সংজ্ঞা, বদলে যাবে চিন্তা, মনন, প্রতিভার শুভ বিকাশ ঘটবে, স্বপ্নগুলো হবে ফলবতী। সময়ের হাত ধরে এগিয়ে চলে মানুষ, পৃথিবী, সভ্যতা, সমাজ সবকিছু। সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে না পারলেই জীবন ব্যর্থতার গ্লানিতে পর্যবেশিত হয়।

পৃথিবীর প্রত্যেকটি মানুষ একটি বিস্ময়কর জীবনের অধিকারী হতে চায়। মানুষ যা ভালোবাসে, যা আশা করে, তা পেতে চায়। কিন্তু সব সময় কি তা পাওয়া হয়ে উঠে ? মানুষের চাওয়া আর পাওয়ার মাঝে বিস্তর ব্যবধান। এ ব্যবধান কিছু শ্রষ্ঠা প্রদত্ত আবার কিছু মনূষ্যসৃষ্ট। একজন মানুষ এক জীবনে অনেক কিছুই আশা করে তা কি সব সময় সে পায় ? যদি সে তার প্রাপ্য মর্যাদা, প্রাপ্য সন্মান, প্রাপ্য অংশীদার যোগ্যতা থাকা সত্বেও না পায় তবে না পাওয়ার হতাশা থেকে সৃষ্টি হয় অভিমান, অভিমান ঘনিভূত হয়ে রূপ নেয় প্রতিহিংসায় আর প্রতিহিংসা থেকে জন্ম নেয় প্রতিশোধের। এই প্রতিশোধ নেবার লক্ষ্যকে সামনে রেখেই একজন সাধারন মানুষ ধ্বংসাত্মক কাজ করতে বাধ্য হয়।না পাওয়ার ব্যর্থতা আর হতাশা থেকেই মানুষ অনেক সময় আপনজনকে ভুলে থাকতে বাধ্য হয়। নিকটজনকেও দূরে সরিয়ে দেয়।

প্রত্যক মানুষই তার আপন পরিবার, পরিজন, বন্ধু-বান্ধবদের নিয়ে সুখের কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে থাকতে চায়। এ চাওয়া কি অন্যয় ? প্রত্যেকেই সুখের জীবন গড়তে অজস্র ধন-সম্পদের অধিকারী হতে চায়। কিন্তু সবাই কি সফল হয় ? সফল হতে না পারলে তখন জীবন হয়ে উঠে দুর্বিষহ ও যন্ত্রণাময়।তাই মাঝে মাঝে ভালবাসাকে অহেতুক মনে হয়। এ পৃথিবীতে কোনো জিনিস ভালবাসলে ভালবাসাতেই যে তার চরম ও পরম সার্থকতা, এটা বোধহয় কোন প্রবাসী ছাড়া বুঝতে পারে না। প্রবাসের ব্যস্ত সময় বয়ে যাচ্ছে সময়ের নিয়মে শ্যামল সবুজ বাংলার বহতা নদীর মত। সময়ের সাথে জীবনের অনেক কিছুই হারিয়ে গেছে, শুধু যার গেছে সেই জানে কিভাবে গেছে। আমি অন্তঃস্থল থেকে উপলব্ধি করি আমার আমিত্বকে, আমার জীবনে যাকে না পেলে পুরো জীবনটা অসমাপ্ত রয়ে যেত যাকে উপলব্ধি করি আজো নিদ্রাহীন রাতে, একাকী নিঃঝুম দুপুরে, বিষন্ন সন্ধ্যায়। উপলব্ধি করি একসাথে থাকার দীর্ঘ দিবস রজনী, এখনও অনুভব করি পাশে না থাকার অশেষ যন্ত্রণা। এখনও মাঝ রাতে হঠাৎ নিজেকেও খুব একা মনে হয়, কেউ যেন কোথাও নেই। অপ্রতিরোধ্য এক চিন্তা বাতিকগ্রস্থের মত মগজে ধাক্কা দিতে থাকে-কখন কি হারিয়ে যায় আমার, দীর্ঘ প্রবাস জীবনে অনেককে হারিয়েছি। জানিনা আবার কাকে হারাব ? একটা সুপ্ত আশঙ্কার আবেগ নতুনমাত্রায় তোলপাড় করে আমাকে।

প্রবাস জীবনের সত্যিটা বড় কঠিন, বড়ই নির্মম। জীবনের নিয়মেই জীবন চলে, একে থামিয়ে দেয়ার শক্তিতো কারো হাতেই নেই। তারপরও শত ব্যস্ততার মাঝেও নিজেকে বের করতে হয় বেঁচে থাকার নতুন কৌশল, বের করতে হয় একাকী থাকার তীব্র ভারী পাথরটাকে বুক থেকে আস্তে আস্তে টেনে নামানোর করুণ প্রচেষ্টা। এই প্রচেষ্টায় কেউ সঙ্গী থাকেনা, কেউ দেখিয়ে দিতে পারেনা আপন জন বিহীন জীবনটা চলার সহজ সরল পথ। শোকের দগদগে লাল রং ক্ষতে নিজেকেই বুলাতে হয় ফ্যাকাশে আচড়। সবকিছুই ঘটতে থাকে বেচে থাকার অমোঘ শর্তে। সময়ের ব্যবধানে জীবনের দায়বদ্ধতার খাতিরে আপনজন থেকে দূরে থাকলেও ধরাছোঁয়ার বাইরে নেই দেশের উজ্জল, ভাস্বর অসংখ্য সব স্মৃতি।

ভালবেসে প্রবাস জীবনকে আলিঙ্গন করে অনেকেই তাঁদের জীবন-জীবিকাবৃত্তি থেকে সরে এসে জাগতিকভাবে অসফল মানুষে পরিণত হয়েছেন। যদিও সব প্রবাসীর বৃত্তি বা পেশাই এক নয়।অনেকে দু’হাতেনতুন বছরের পথে পাড়ি জমানোর নিত্য নিয়মেই প্রবহমান সময়ের স্রোতে একেকটি নতুন বছর আসবে, থাকবে আর চলে যাবে পুরনো হয়ে। নতুন-পুরনোর মধ্যপথে দাঁড়িয়ে প্রবাসে বাস করেও নতুন স্বপ্ন, নতুন সুখ, নতুন কিছুর প্রাপ্তির প্রত্যাশায় চোখে স্বপ্ন, মনে আশা পুরাতন জরাজীর্ণ বদলে নতুন কিছু পাওয়ার দুর্নিবার আকাঙ্ক্ষা মনের কোনে দোলা দেয়। যেন কুয়াশাভরা তিমির শেষে নতুন সূর্যোদয় বদলে দেবে অনেক কিছু…। দুঃখ-ক্লেশ, অপ্রাপ্তি-অপূর্ণতা, সব স্বপ্ন সত্যি হয়ে ধরা দেবে। নতুনের আগমন জীবনকে আরও বেশি গতিময়-ছন্দময় করে তুলবে, করবে আরও বেগবান, বর্ণিল। আগামীর নতুন সূর্য বদলে দেবে জীবনের সংজ্ঞা, বদলে যাবে চিন্তা, মনন, প্রতিভার শুভ বিকাশ ঘটবে, স্বপ্নগুলো হবে ফলবতী। সময়ের হাত ধরে এগিয়ে চলে মানুষ, পৃথিবী, সভ্যতা, সমাজ সবকিছু। সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে না পারলেই জীবন ব্যর্থতার গ্লানিতে পর্যবেশিত হয়।

পৃথিবীর প্রত্যেকটি মানুষ একটি বিস্ময়কর জীবনের অধিকারী হতে চায়। মানুষ যা ভালোবাসে, যা আশা করে, তা পেতে চায়। কিন্তু সব সময় কি তা পাওয়া হয়ে উঠে ? মানুষের চাওয়া আর পাওয়ার মাঝে বিস্তর ব্যবধান। এ ব্যবধান কিছু শ্রষ্ঠা প্রদত্ত আবার কিছু মনূষ্যসৃষ্ট। একজন মানুষ এক জীবনে অনেক কিছুই আশা করে তা কি সব সময় সে পায় ? যদি সে তার প্রাপ্য মর্যাদা, প্রাপ্য সন্মান, প্রাপ্য অংশীদার যোগ্যতা থাকা সত্বেও না পায় তবে না পাওয়ার হতাশা থেকে সৃষ্টি হয় অভিমান, অভিমান ঘনিভূত হয়ে রূপ নেয় প্রতিহিংসায় আর প্রতিহিংসা থেকে জন্ম নেয় প্রতিশোধের। এই প্রতিশোধ নেবার লক্ষ্যকে সামনে রেখেই একজন সাধারন মানুষ ধ্বংসাত্মক কাজ করতে বাধ্য হয়।না পাওয়ার ব্যর্থতা আর হতাশা থেকেই মানুষ অনেক সময় আপনজনকে ভুলে থাকতে বাধ্য হয়। নিকটজনকেও দূরে সরিয়ে দেয়।

প্রত্যক মানুষই তার আপন পরিবার, পরিজন, বন্ধু-বান্ধবদের নিয়ে সুখের কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে থাকতে চায়। এ চাওয়া কি অন্যয় ? প্রত্যেকেই সুখের জীবন গড়তে অজস্র ধন-সম্পদের অধিকারী হতে চায়। কিন্তু সবাই কি সফল হয় ? সফল হতে না পারলে তখন জীবন হয়ে উঠে দুর্বিষহ ও যন্ত্রণাময়।তাই মাঝে মাঝে ভালবাসাকে অহেতুক মনে হয়। এ পৃথিবীতে কোনো জিনিস ভালবাসলে ভালবাসাতেই যে তার চরম ও পরম সার্থকতা, এটা বোধহয় কোন প্রবাসী ছাড়া বুঝতে পারে না। প্রবাসের ব্যস্ত সময় বয়ে যাচ্ছে সময়ের নিয়মে শ্যামল সবুজ বাংলার বহতা নদীর মত। সময়ের সাথে জীবনের অনেক কিছুই হারিয়ে গেছে, শুধু যার গেছে সেই জানে কিভাবে গেছে। আমি অন্তঃস্থল থেকে উপলব্ধি করি আমার আমিত্বকে, আমার জীবনে যাকে না পেলে পুরো জীবনটা অসমাপ্ত রয়ে যেত যাকে উপলব্ধি করি আজো নিদ্রাহীন রাতে, একাকী নিঃঝুম দুপুরে, বিষন্ন সন্ধ্যায়। উপলব্ধি করি একসাথে থাকার দীর্ঘ দিবস রজনী, এখনও অনুভব করি পাশে না থাকার অশেষ যন্ত্রণা। এখনও মাঝ রাতে হঠাৎ নিজেকেও খুব একা মনে হয়, কেউ যেন কোথাও নেই। অপ্রতিরোধ্য এক চিন্তা বাতিকগ্রস্থের মত মগজে ধাক্কা দিতে থাকে-কখন কি হারিয়ে যায় আমার, দীর্ঘ প্রবাস জীবনে অনেককে হারিয়েছি। জানিনা আবার কাকে হারাব ? একটা সুপ্ত আশঙ্কার আবেগ নতুনমাত্রায় তোলপাড় করে আমাকে।

প্রবাস জীবনের সত্যিটা বড় কঠিন, বড়ই নির্মম। জীবনের নিয়মেই জীবন চলে, একে থামিয়ে দেয়ার শক্তিতো কারো হাতেই নেই। তারপরও শত ব্যস্ততার মাঝেও নিজেকে বের করতে হয় বেঁচে থাকার নতুন কৌশল, বের করতে হয় একাকী থাকার তীব্র ভারী পাথরটাকে বুক থেকে আস্তে আস্তে টেনে নামানোর করুণ প্রচেষ্টা। এই প্রচেষ্টায় কেউ সঙ্গী থাকেনা, কেউ দেখিয়ে দিতে পারেনা আপন জন বিহীন জীবনটা চলার সহজ সরল পথ। শোকের দগদগে লাল রং ক্ষতে নিজেকেই বুলাতে হয় ফ্যাকাশে আচড়। সবকিছুই ঘটতে থাকে বেচে থাকার অমোঘ শর্তে। সময়ের ব্যবধানে জীবনের দায়বদ্ধতার খাতিরে আপনজন থেকে দূরে থাকলেও ধরাছোঁয়ার বাইরে নেই দেশের উজ্জল, ভাস্বর অসংখ্য সব স্মৃতি।

ভালবেসে প্রবাস জীবনকে আলিঙ্গন করে অনেকেই তাঁদের জীবন-জীবিকাবৃত্তি থেকে সরে এসে জাগতিকভাবে অসফল মানুষে পরিণত হয়েছেন। যদিও সব প্রবাসীর বৃত্তি বা পেশাই এক নয়।অনেকে দু’হাতে কামিয়ে ভোগ করতে পারে না আবার অনেকে নিজের কোন কিছু না থাকা সত্বেও সবই ভোগ করছে। ঠিক যেন লালন সাঁইয়ের এই গানের মতো….

“আপন ঘরে বোঝাই সোনা,
পরে করে লেনা দেনা”_
লালন সাঁইয়ের এই ভাববাদী গানের বাণী বস্তুগত তাৎপর্যও আমাদের চারপাশে বিরল নয়। প্রবাস জীবনের আলো আধাঁরীর বিষন্ন ছায়া আর চাপধরা এক কঠিন নীরবতা হাহাকার হয়ে মাঝে মাঝে আমাকে গ্রাস করে। অসহনীয় এক শুন্য একাকীত্ব মাঝ রাতেও আমাকে জাগিয়ে রাখে।কমপিউটারের মনিটরে বেজে চলা গানটা যেন বাস্তবতায় ধরা দেয় নিজের জীবনের ফ্রেমে……..

‘প্রেম পূজা আজি সাঙ্গ করেছি, প্রতিমা ফেলেছি ভাঙ্গিয়া’

বুক ভাঙ্গা দীর্ঘশ্বাস আর গুমরে যাওয়া কান্নার মত সারা রুমে ঘুরপাক খায় গানের সুর।
মনের অজান্তে দুচোখে প্লাবন বয়ে যায়। অন্তহীন এক কষ্ট আর ভাবনায় কেটে যায় বাকী রাতটুকু…………………….

****************
তাং ০১/০১/২০১৩
আল-খোবার, সৌদি আরব।

কামিয়ে ভোগ করতে পারে না আবার অনেকে নিজের কোন কিছু না থাকা সত্বেও সবই ভোগ করছে। ঠিক যেন লালন সাঁইয়ের এই গানের মতো….

“আপন ঘরে বোঝাই সোনা,
পরে করে লেনা দেনা”_
লালন সাঁইয়ের এই ভাববাদী গানের বাণী বস্তুগত তাৎপর্যও আমাদের চারপাশে বিরল নয়। প্রবাস জীবনের আলো আধাঁরীর বিষন্ন ছায়া আর চাপধরা এক কঠিন নীরবতা হাহাকার হয়ে মাঝে মাঝে আমাকে গ্রাস করে। অসহনীয় এক শুন্য একাকীত্ব মাঝ রাতেও আমাকে জাগিয়ে রাখে।কমপিউটারের মনিটরে বেজে চলা গানটা যেন বাস্তবতায় ধরা দেয় নিজের জীবনের ফ্রেমে……..

‘প্রেম পূজা আজি সাঙ্গ করেছি, প্রতিমা ফেলেছি ভাঙ্গিয়া’

বুক ভাঙ্গা দীর্ঘশ্বাস আর গুমরে যাওয়া কান্নার মত সারা রুমে ঘুরপাক খায় গানের সুর।
মনের অজান্তে দুচোখে প্লাবন বয়ে যায়। অন্তহীন এক কষ্ট আর ভাবনায় কেটে যায় বাকী রাতটুকু…………………….

****************
তাং ০১/০১/২০১৩
আল-খোবার, সৌদি আরব।

Leave a reply